অঙ্গ সমুহ

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও এর লক্ষ্য অর্জনের উদ্দেশ্যে প্রকল্পটিকে চারটি অঙ্গে বিভাজন করে প্রতিটি অঙ্গের কার্যক্রম তদারকীর জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের একজন করে কর্মকর্তা নিয়োজিত আছেন। তাছাড়া প্রকল্প বাস্তবায়নে পরামর্শক-বিশেষজ্ঞ নিয়োজিত রয়েছেন। ক) ইউনিয়ন পরিষদ অনুদানঃ নির্ধারিত শর্তপূরণ সাপেক্ষে প্রতিবছর দেশের সকল ইউনিয়ন পরিষদকে এ প্রকল্পের আওতায় মৌলিক থোক বরাদ্দ প্রদান করা হচ্ছে। ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে ৪,৫৪৩টি ইউনিয়ন পরিষদের অনুকূলে ৪৯১.০০ কোটি টাকা এবং ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরে ৪,৫৪৭টি ইউনিয়নে অনুকূলে ৫৪৭.৭০ কোটি টাকা থোক বরাদ্দ হিসাবে প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া কর্মদক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ হিসাবে ৩,৬৭০টি ইউনিয়নের অনুকূলে ৮৩.০০ কোটি টাকা প্রদান করা হয়েছে। ২০১৩-২০১৪ অর্থ বছরে ৪৫৪৪টি ইউনিয়ন পরিষদের অনুকূলে ৬১৯.১৩ কোটি টাকা ছাড় করা হয়েছে। এ বছরে ৩৩৩২ টি ইউনিয়ন পরিষদের অনুকূলে কর্মদক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ হিসাবে ৯২৪২ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে।

ইউনিয়ন পরিষদসমূহকে নিম্নের দু’ধরণের থোক বরাদ্দ প্রদান করা হয়ঃ

মৌলিক থোক বরাদ্দ (BBG)

  • মৌলিক থোক বরাদ্দের ২৫% অর্থ সকল ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে সমহারে বিতরণ করা হয়।
  • অবশিষ্ট ৭৫ ভাগ অর্থ, অডিটে উত্তীর্ণ ইউনিয়ন পরিষদের অনুকূলে জনসংখ্যার উপর ভিত্তি করে ৯০% এবং আয়তনের উপর ভিত্তি করে ১০% বরাদ্দ নির্ধারণ করা হয়।
  • স্থানীয় সরকার বিভাগ মৌলিক থোক বরাদ্দের (বিবিজি) অর্থ দুই কিস্তিতে প্রদান করে থাকে যা প্রতি বছরের আগস্ট-সেপ্টেম্বর এবং ফেব্র“য়ারি-মার্চ মাসে সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়।
  • মৌলিক থোক বরাদ্দ (ইইএ) ও দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ (চইএ) এর অন্তত ৩০% অর্থ নারীদের দ্বারা অগ্রাধিকার প্রাপ্ত স্কিম বাস্ত-বায়নের জন্য ব্যয় করা হয়।
  • মৌলিক থোক বরাদ্দ (ইইএ) ও দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ (চইএ) এর সর্বোচ্চ ১০% অর্থ সক্ষমতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত কাজে (প্রশিক্ষণ, পারস্পরিক শিখন, স্কিম তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা, পরিবেশ ও সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থাসমূহ, হিসাব রক্ষণ, ইউনিয়ন পর্যায়ের তথ্যাদি কম্পিউটারে এন্ট্রি, মহিলা উন্নয়ন ফোরামকে সহায়তা প্রদান এবং অন্যান্য নির্দিষ্ট দক্ষতা বৃদ্ধি সহায়তা) ব্যয় করা যাবে। ১০% অর্থ উল্লেখিত ক্ষেত্রে ব্যয় না হলে তা স্কিম বাস্তবায়নে ব্যয় করা যায়।

 

দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ (PBG)

  • মৌলিক থোক বরাদ্দ প্রাপ্ত ইউনিয়ন পরিষদসমূহের সার্বিক দক্ষতা উন্নয়নে উৎসাহ প্রদানের জন্য দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ প্রদান করা হচ্ছে। আর্থিক ও রাজস্ব ব্যবস্থাপনার বিভিন্ন দিক, যেমন রাজস্ব আয় বৃদ্ধি, রাজস্ব আদায়ের হার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা, জনগণের অংশগ্রহণ, পরিকল্পনা ও বাজেট প্রণয়ন এবং প্রতিবেদন ইত্যাদি বিষয়ে যে সকল ইউনিয়ন পরিষদ দক্ষতা প্রদর্শন করে তাদেরকে এ বরাদ্দ প্রদান করা হয়। প্রকল্পের দ্বিতীয় বছর ২০১২-১৩ থেকে দক্ষতা ভিত্তিক বরাদ্দ প্রদান শুরু হয়েছে।
  • দক্ষতার মানের উপর ভিত্তি করে উপজেলা পর্যায়ে প্রথম সারির ৭৫% ইউনিয়ন পরিষদকে তিনটি ভাগে ভাগ করে এ বরাদ্দ প্রদান করা হচ্ছে।
  • দক্ষতার মানের দিক থেকে প্রথম ২৫% ইউনিয়ন পরিষদ তাদের প্রাপ্য মৌলিক থোক বরাদ্দের অতিরিক্ত ৩০% অর্থ পাচ্ছে।
  • পরবর্তী ২৫% ইউনিয়ন পরিষদ তাদের প্রাপ্য মৌলিক থোক বরাদ্দের অতিরিক্ত ২০% অর্থ পাচ্ছে।
  • তৎপরবর্তী ২৫% ইউনিয়ন পরিষদ তাদের প্রাপ্য মৌলিক থোক বরাদ্দের অতিরিক্ত ১০% অর্থ পাচ্ছে।

খ) তথ্য প্রবাহ এবং জবাবদিহিতাঃ প্রকল্পের আওতাভুক্ত ইউনিয়ন পরিষদসমূহ তাদের আয়, ব্যয়, প্রকল্প বাস্তবায়ন ইত্যাদি বিষয় মাসিক/ত্রৈমাসিক সভায় জনগণের সামনে উন্মুক্ত করছে এবং প্রকল্পের নির্ধারিত ছকে এ সকল বিষয়ের ষান্মাসিক প্রতিবেদন ইউএনও ও ডিডিএলজি বরাবরে প্রেরণ করছে। এতে প্রকল্পের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হচ্ছে এবং জনগণ তা প্রত্যক্ষ করছে। বেসরকারি অডিট ফার্ম নিয়োগের মাধ্যমে প্রতিবছর প্রকল্পভুক্ত ইউনিয়ন পরিষদসমূহের সমুদয় কার্যক্রমের ফাইন্যান্সিয়াল অডিট ও কর্মদক্ষতা মূল্যায়ন করা হচ্ছে। এছাড়া সরকারি অডিট টিম প্রতিবছর মোটামুটি ভাবে ২০% ইউনিয়ন পরিষদের প্রকল্প সংক্রান্ত কার্যক্রম অডিট করছে। ফলে ইউনিয়ন পরিষদকে আর্থিক স্বাধীনতা দেয়া হলেও জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে পরিষদের দায়বদ্ধতা সরকার ও জনগণের নিকট নিশ্চিত হচ্ছে। গ) প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা উন্নয়নঃ ইউনিয়ন পরিষদ, স্থানীয় জনবল ও সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণমূলক পরিকল্পনা ও বাজেট প্রণয়ন এবং অর্থ ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রকল্পের এ অঙ্গের মাধ্যমে দেশজুড়ে তথ্য, শিক্ষা ও যোগাযোগ কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। প্রকল্পের চলতি মেয়াদ পর্যন্ত নিম্নবর্ণিত সংখ্যক চেয়ারম্যান, সদস্য, ইউপি সচিব ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হয়েছেঃ

৩ ৬

নং যাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে/হবে সংখ্যা (জন) প্রশিক্ষণ প্রদানকারী সংস্থা/দপ্তর
মাষ্টার ট্রেইনার ১৫০ এনআইএলজি, বার্ড ও আরডিএ
সদস্য (প্রতি উপজেলায় ১০ জন)[/td> ৪৮৬০
UP Functionaries ৬২৩৮২ ইউআরটি
WC & SSC সদস্য ৫৬৬৪৩০
District Facilitators ৬৯ পিএমইউ
DDLG ৬৪

 

ইউনিয়নসমূহে অন্যান্য ইউনিয়ন পরিষদ হতে চেয়ারম্যান, সদস্য ও সচিব পিয়ার লার্নিং কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করছে।

 

 

 

Update Date : 01/11/2016

Copyright LGSP-3, 2014 | All Rights Reserved | Powered By: MIS Unit, LGSP-3. Design & Developed By IBCS-PRIMAX Software(BD) Ltd. Last update :30/10/2019